সংবাদ ব্রিফিং

তনু মেয়েটা যখন ক্যান্টনমেন্টের ভেতর ধর্ষিত হয় তখন বাংলাদেশ স্বাধীন ছিলো!!






তনু মেয়েটা যখন ক্যান্টনমেন্টের ভেতর ধর্ষিত হয় তখন বাংলাদেশ স্বাধীন ছিলো!! যৌনাঙ্গ কেটেimages

বাচ্চা মেয়েটাকে যখন ধর্ষন করা হয় তখন বাংলাদেশ স্বাধীন ছিলো!! জন্মদিনের পার্টিতে যখন দুই তরুণী ধর্ষিত হয় তখনও বাংলাদেশ স্বাধীন ছিলো!! এই হলো ‘তথাকথিত’ স্বাধীন বাংলাদেশ যেখানে সবকিছুই আছে কিন্তু নারীর নিরাপত্তা নাই!!

আচ্ছা, ষাটের দশকে যখন আমরা স্বাধীন ছিলাম না তখন বাংলাদেশ কেমন ছিলো? সেই সময়েও এদেশে তরুণ তরুণী ছিলো। তাদের মাঝে তারুণ্য ছিলো। তাদের মাঝে আবেগ ছিলো। তখনও ছেলেমেয়েদের পরস্পরের মাঝে আকর্ষণ ছিলো। প্রেম, ভালোবাসা, কামনা, যৌনাকাঙ্ক্ষা সবই ছিলো কিন্তু আজকের মতো তাদের মাঝে শুধু লাম্পট্য ছিলোনা।

হ্যা, তখন দুই একটা বখাটে ছেলেও ছিলো কিন্তু তাদের মাঝে সংযম ছিলো। রাস্তায় কোনো সুন্দরী মেয়ে দেখলে দূর থেকে শিস বাজিয়ে তার দৃষ্টি আকর্ষণ করতো। কেউ কেউ নিজের চুলে হাত দিয়ে বা সজোরে কাশি দিয়ে মেয়েদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতো। আবার কেউ কেউ দূরবর্তী গাছের আড়ালে দাঁড়িয়ে মেয়েদের দিকে তাকাতো। সামনে আসার সাহস তাদের মাঝে ছিলোনা।

তখনকার বখাটেরা মেয়েদের ‘মাল’ বলতোনা। ধর্ষন শব্দটার সাথে তখনকার মানুষজন পরিচিত ছিলোনা। একটা তরুণী মেয়েকে ধর্ষন করার চিন্তা তাদের মাথায় আসতোনা। এমনকি একটা বাচ্চা মেয়েকে ধর্ষন করার কথা তারা কল্পনাও করতোনা। মেয়েদের সাথে খারাপ কিছু করার আগে তারা দ্বিধাবোধ করতো। তারা কেউই তখন সীমালঙ্ঘন করতোনা।

আজ আমরা স্বাধীন। দেশ উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের জিডিপি বাড়ছে। সরকার পদ্মাসেতু বানাচ্ছে। সরকার নারীর উন্নয়নের কথা বলছে। সরকার হ্যান করছে, ত্যান করছে। এদেশের প্রধানমন্ত্রী নারী। সংসদের স্পীকার নারী। হাইকোর্টের বিচারকও নারী। কিন্তু তারা কি পেরেছে নারীর নিরাপত্তা দিতে? তাদের কাছে তো ক্ষমতা ছিলো, আইন ছিলো, প্রশাসন ছিলো কিন্তু তারা কেনো সবক্ষেত্রেই ব্যর্থ?

যেদেশে আজ সব বয়সী নারীকে ধর্ষনের ভয় নিয়ে থাকতে হয়। যেদেশে ৮ বছরের মেয়েশিশু থেকে শুরু করে ৮০ বছরের বৃদ্ধাও ধর্ষিত হয় সেদেশই কি আমরা চেয়েছিলাম? এরকম স্বাধীনতাই কি আমরা চেয়েছিলাম? এদেশকে ধর্ষকমুক্ত করার সময় কি এসেছে? এদেশকে আবারো কি স্বাধীন করার সময় এসেছে? ‘নারীর নিরাপত্তা’ নাকি ‘নারীর উন্নয়ন’ কোনটা বেশি জরুরী ছিলো?

মনের ভেতর আজ শুধু প্রশ্ন আর প্রশ্ন…!!
লেখাটা
kR Rifat